অপরাধ

সাইনবোর্ড এলাকায় প্রতারক শেখ জনি’র অত্যাচারে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী

সাইনবোর্ড এলাকায় প্রতারক শেখ জনি'র অত্যাচারে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী

স্টাফ রিপোর্টার (Somoysokal) ঢাকা-নারায়ণগঞ্জের বডার এরিয়া সাইনবোর্ড এলাকায় প্রতারক শেখ জনি’র অত্যাচারে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী। প্রতারক শেখ জনি সাধারণ মানুষ’কে সাইনবোর্ড মোরে একা পাইলে কথা বলার জন্য ডাক দিয়ে রাস্তার পাশে থাকা তার অফিসে নিয়ে চাঁদা দাবী করেন। যদি চাঁদা দিতে রাজি না হোন তাহলে উলঙ্গ করে একটি মেয়ের সাথে ছবি তুলে ব্ল্যাকমেইল করে টাকা আদায় করে। আর প্রতারক শেখ জনি নিজেকে ডিবি পুলিশ বলে বিভিন্ন জায়গায় পরিচয় দেন।

সাইনবোর্ড এলাকায় সাধারণ মানুষের সাথে কথা বলে জানা যায়, শেখ জনি নিজেকে ডিবি পুলিশ পরিচয় দিয়ে সাধারণ মানুষ’কে ভয় ভীতি দেখিয়ে নগদ অর্থ হাতিয়ে নেন। কোনো কোনো সময় মেয়ে দিয়ে ব্ল্যাকমেইল করে। সাইনবোর্ড এলাকার বাসিন্দা আব্দুল হাজী মাদবর মিয়ার কাছ থেকে ৩১ হাজার টাকা,আলমগীর মিয়া’র কাছ থেকে ৭২ জাহার টাকা ও সাইদুল মুন্সি’র কাছ থেকে ৪ লাখ ৫০ হাজার টাকা বিভিন্নভাবে প্রতারণা করে হাতিয়ে নিয়েছে।

প্রতারক শেখ জনি’র বিরুদ্ধে কিছুদিন আগে সাইনবোর্ড এলাকার বাসিন্দা আব্দুল হাই মাদবর ফতুল্লা থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে। অভিযোগ টি নিচে হুবহু তুলে ধরা হলো।

জনাব, বিনীত নিবেদন এই যে, আমি আব্দুল হাই মাদবর (৬৫), জাতীয় পরিচয় পত্র নং- ৩৭৩৪৩১৮২০১, পিতা- মৃত হাজী হাসান মাদবর, সাং- কাজলা নয়ানগর বাসাং ১৯/বি , থানা-
যাত্রাবাড়ী, ডিএমপি ঢাকা। এ/পি শান্তিধারা বেপারী টাওয়ার ২য় তালা, থানাঃ-ফতুল্লা , জেলাঃ-
নারায়নগঞ্জ । থানায় হাজির হইয়া বিবাদী ১। মােঃ জনি শেখ (৩৮), পিতা- কবির শেখ, সাং-
জলকারপাড়া থানাঃ- কাশিয়ানী জেলাঃ- গােপালগঞ্জ এ/পি সাং শাস্তিধারা রাজ্জাক বেপারীর বাড়ীর ভাড়াটিয়া, থানাঃ-ফতুল্লা জেলাঃ-নারায়নগঞ্জ , ২। তাছলিমা আক্তার (৩২), স্বামী-নয়ন , সাং ও থানা-যাত্রাবাড়ী, ডিএমপি ঢাকা স্বয়ের এর বিরুদ্ধে এই মর্মে অভিযাোেগ দায়ের করিতেছি যে আমি বিগত ০২ বৎসর ধরিয়া বর্তমান ঠিকানায় রেডিমেড পোষাক পাইকারী ক্রয় করিয়া বিভিন্ন পার্টির নিকট বিক্রয় করিয়া থাকি। ২নং বিবাদী গার্মেন্টেসে মিডিয়া হিসাবে কাজ করিতো। সেই সুবাদে ২নং বিবাদী অনুমান ৩/৪ মাস পূর্বে আমার নিকট আসিয়া কিছু স্যাম্পল নিয়া আসে। তার কিছু মালামাল পছন্দ হইলে ও তার নিকট থেকে কোন মালামাল ক্রয় করি নাই। এরপর থেকে ২নং বিবাদী মাঝে মধ্যে আমাদের মার্কেটে
আসতাে। সেই সুবাদে তার সহিত আমার সু-সম্পর্ক গড়িয়া উঠে। অনুমান ০২ মাস পূর্বে আমি আমার
ব্যবসা প্রতিষ্টানে থাকাবস্থায় ২নং বিবাদী ইং ১০/১০/২০২২ তারিখ সকাল অনুমান ০৮.৩০ ঘটিকার সময় মাোবাইলে ফোন দিয়া বলে যে ভাই একটু সাইবাের্ড আসেন । আমি তাহার পুর্ব পরিচিত বিধায় তার নিকট যাই। সাইনবাের্ড মোড়ে যাওয়ার সাথে সাথে দেখতে পাই ১ ও ২ নং বিবাদী সহ অজ্ঞাত নামা ৪/৫ জন লােক দাড়ানাে। এক পর্যায়ে উক্ত বিবাদী चয় সহ অজ্ঞাত নামা বিবাদীরা কথা বলতে বলতে আমাকে সাইনবাের্ড মােড় সংলগ্ন মসজিদ কোবার পিছনে একটি ঘরের মধ্যে নিয়া যায়। এরপর ১নং বিবাদী আমাকে ভয়ভিতি প্রদর্শন করিয়া ৪,০০,০০/-টাকা চাঁদা দাবী করে। আমি চাঁদা দিতে অস্বীকার করিলে ২নং বিবাদীকে আমার সামনে আনিয়া আমার পরনে টাউজার খুলিয়া ছবি তােলে। এরপর ১নং বিবাদী আমাকে বলে যে তুই ২নং বিবাদীর সহিত খারাপ কাজ করছিস বলিয়া মারধর করতযঃ সে ডিবি পুলিশের পরিচয় দিয়া বলে যে এই মূহ্ত্তেও,০,০০০/- টাকা না দিলে তাের ছবি ফেইসবুকে দিয়া যান সম্মাান ক্ষুন্ন করিবাো। ১নং বিবাদী আমার ব্যবহৃত মাবাইল নং ০১৭১২২৩৫৩৭৫ দ্বারা আমার ছোট ভাই হাজী আঃ সালাম মাদবর এর মােবাইল নং ০১৭৬২৬০১৩৫ নাম্বারে ফোন দিয়া টাকা আনতে
বলে। আমার ভাই আমার বিপদের কথা শুনিয়া ধারকর্য করিয়া ৩১,০০০/- টাকা ১নং বিবাদীর হাতে
দিলে আমাকে ছাড়িয়া দেয় এবং বলে যে এই ঘটনা কাহাকেও জানাইলে আমাকে জীবনে শেষ করিয়া
ফেলিবে। পরে জানতে পারি যে ১ ও ২ নং বিবাদী নিরীহ লােকজনদের জিম্মি করিয়া তাদের নিকট থেকে কৌশলে মােটা অংকের টাকা পয়সা আদায় করিতো। ইং ১২/১২/২০২২ তারিখ সন্ধ্যা অনুমান ০৬.০০ ঘটিকার সময় ১নং বিবাদী শান্তিধারা এলাকায় ঘােরাফেরা করিতে দেখিয়া লোকজনদের সহয়তায় তাকে ধুত করিয়া থানায় সংবাদ দিলে থানা পুলিশ তাকে হেফাজতে নেয়। ঘটনার বিস্তারিত এলাকার লােকজন দের জানাইয়া অভিযোগ করিতে সামাণ্য বিলম্ব হইল। অতএব, উল্লেখিত বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করিতে মর্জি হয়।

Back to top button
%d bloggers like this: